১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৩রা জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী

ইজ্জত বাঁচাতে ২০ মিনিট দৌড়ালেন এই তরুণী পিছনে ছিল ৫ যুবক,

ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮, সময় ৬:০৫ পূর্বাহ্ণ

আরো একবার প্রমাণ হলো রাতে মেয়েদের চলাফেরা করা নিরাপদ নয়। রাত সাড়ে ৯টা বাজে। এমন সময় রাস্তা দিয়ে দৌড়াচ্ছেন এক তরুণী। ঘটনা কি? এর পেছনে গাড়ি নিয়ে ধাওয়া করছে ৫ জন যুবক। এতেই অনেকটা অনুমান করা গেল। তাদের হাত থেকে ইজ্জত বাঁচাতে অন্তত ২০ মিনিট দৌড়ালেন ওই তরুণী। জানা গেছে, ওই তরুণী একটি তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থায় কর্মরত আছেন।

মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি ) কলকাতার বাগুইআটি থানায় এ ঘটনা ঘটেছে। এই অভিযোগ পাওয়ার পরেই তদন্ত শুরু করে দিয়েছে কলকাতার পুলিশ। জানা গেছে, এরইমধ্যে ওই তরুণীকে ধাওয়া করা বিশ্বজিৎ মজুমদারের ব্যক্তিগত গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে পুলিশ। এছাড়াও এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিশ্বজিতের সাথে আরো ৪ সহযোগী অভিষেক দাস, কিশোর বিশ্বাস, অভিষেক বাচার ও সজল দাসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এই ঘটনার বিষয়ে ওই তরুণী বলেন, সেদিন রাতে গলিতে গলিতে দৌড়নোর কথা কোনো ভাবেই ভুলতে পারছি না আমি। আমি পুরোই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছি।

এ দিকে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত এক বছর যাবত কেষ্টপুরে একটি বাড়িতে সিঙ্গেল থাকতেন আসামের বাসিন্দা ওই তরুণী। প্রতিদিনের ন্যায় মঙ্গলবারও রাত সাড়ে ৯টার কিছু পর ফুটব্রিজ দিয়ে বাড়ির রাস্তায় হাঁটছিলেন তিনি। এ সময় সমরপল্লী এলাকায় একটি দোকান থেকে রুটি কেনার সময় লক্ষ্য করেন, একটি সাদা রঙের সিডানের হেডলাইট ফেলা হচ্ছে তার ওপরে। এ সময় তিনি দেখেন ওই গাড়িতে ৫ যুবক রয়েছে।

তবে শুরুর দিকে সে অতোটা আমলে নেননি এই বিষয়টি। কিন্তু যখন সে রুটি কেনার পরে হাঁটতে শুরু করলেন তখন বুঝতে পারেন যে, গাড়িটি পিছু নিয়েছে তার। এ কারণে নিশ্চিত বিপদের আভাস পেয়ে গলিতে ঢুকে পড়েন ওই তরুণী। এরপর গলি থেকে বড় রাস্তায় বেরোতেই তিনি দেখেন, গাড়িটি সেখানে দাঁড়িয়ে। এমন সময় তিনি কি করবেন বুঝতে পারছিলেন না।

এরপর অবশ্য দৌড়ে পেছনের আরেকটি গলি ধরেন তিনি। কিন্তু ওই গলির মুখে পৌঁছেও দেখেন গাড়িটি সেখানেও পৌঁছে গেছে। যুবকদের গাড়ি থেকে নামতে দেখে আবার দৌড়তে শুরু করেন ওই তরুণী। এমন সময় আরেক তরুণীকে দেখেন। তিনি একটি বাড়িতে ঢোকার জন্য তালা খুলছেন। ওই অপরিচিতের কাছে গিয়েই তিনি বলেন, ‘আমাকে বাড়িতে ঢুকতে দিন।’ আমাকে বিপদের হাত থেকে রক্ষা করুন। আমি প্রচণ্ড বিপদে পড়েছি।

এ সময় পাল্টা প্রশ্ন করেন তালা খুলতে থাকা তরুণীটি। যুবকরা তখন আরো এগিয়ে আসছে! তখন জোর করেই ওই বাড়িতে ঢুকে যান তরুণীটি। যার কাছে আক্রান্ত তরুণী সাহায্য চেয়েছিলেন, তিনিও ওই বাড়িতে ভাড়া থাকেন। পরে বাড়ির মালিক ওই তরুণীকে বাড়ি পৌঁছে দেন রাত সাড়ে ১০টা দিকে।

এ ব্যাপারে বিধাননগর কমিশনারেটের ডিসি (ডিডি) শবরী রাজকুমার বলেন, বিনীত দেশাই নামে একজনের ফেসবুক পোস্ট থেকে ঘটনার কথা প্রথম জানা যায়। পরে ওই তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে অন্যায় ভাবে রাস্তা আটকানো, অসৎ উদ্দেশ্যে পিছু নেয়া ও কটূক্তির অভিযোগে মামলা হয়েছে বলে জানান শবরী রাজকুমার।