২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৫ই জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী

বুবলিও অপুর মতো ভুল পথে হাঁটছেন !!

ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮, সময় ৭:১৪ পূর্বাহ্ণ

একজন নায়ক বা নায়িকার সবচেয়ে বড়গুণ কী?
অভিনয় জানা।
তারপর?
যেকোন নায়ক বা নায়িকার বিপরীতে নিজেকে প্রমাণ করা। দুই বা ততোধিক নায়ক বা নায়িকার সঙ্গে জুটি বেঁধে জনপ্রিয় হওয়া।

প্রথমটিতে সফলই বলা যায়, আলোচিত দুই মুখ চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস ও শবনম বুবলিকে। নিজেদের অভিনয়গুণে তারা প্রতিষ্ঠিত। কিন্তু দ্বিতীয়টিতে? একদমই ‘ফ্লপ’! যদিও ‘ফ্লপ’ শব্দটা এদের সঙ্গে যাচ্ছে না। কারণ এই দুই নায়িকা এক শাকিব খান ছাড়া অন্যকারো সঙ্গে ছবিই করেননি! যদি করতো তবেই জানা যেত তাদের দৌড় কতদূর?

বগুড়ার মেয়ে অপু ২০০৪ সালে আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। ২০০৬ সালে পরিচালক এফ আই মানিক পরিচালিত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে নায়িকা হিসেবে শাকিবের বিপরীতে অভিনয় করেন। ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত টানা ৭০টির মতো ছবিতে তিনি অভিনয় করেন শাকিবের বিপরীতে। মানে অপু অন্য কোন নায়কের বিপরীতে পর্দায় উপস্থিত হয়নি।

এরমধ্যে ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল ভালোবেসে গোপনে বিয়ে করেন শাকিব-অপু। তাদের একটি ছেলেও আছে। নাম আব্রাম খান জয়। বিষয়টি জানাজানি হয় গত বছর ১০ এপ্রিল বিকেলে। অপু এক টিভি লাইভে এসে বলেন, শাকিব আমার স্বামী। আব্রাম খান জয় আমাদের সন্তান।’ অপুর ভাষ্য ছিল, মূলত বিয়ের পর শাকিবের বাসায় বেশিরভাগ সময় থাকতেন তিনি অনেকটা লুকোচুরি করে। মাঝে মাঝে শ্যুটিং শেষে নিজের বাসায়ও চলে যেতেন।

সম্পর্কের তথ্য প্রকাশ করতে চাওয়ায় মাঝেমধ্যেই শাকিবের সঙ্গে মনোমালিন্য হয় অপুর। এরমধ্যে তার গর্ভে আসে সন্তান। ফলে কলকাতার একটি হাসপাতালে শাকিব ছাড়াই সিজার হয় অপুর। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তাদের ঘরে আসে ছেলে আব্রাহাম খান জয়। তারপরও শাকিব এ খবর অপুকে গোপন রাখতে বলেন। কারণ দু’জনের ক্যারিয়ার! ক্যারিয়ারে অপু ছাড় দিয়েছেন। নতুন কোন ছবি করেননি। কিন্তু শাকিব খান তো কাজ করে গেছেন, যাচ্ছেন।

অন্য নায়কদের সঙ্গেও ছবি করতে পারছেন না অপু। কারণ এতদিন তিনি তো শুধু শাকিব খানের সঙ্গেই ছবি করেছেন। আবার এখন অন্যকারো সঙ্গে করলেও সেই ছবি আদৌ দর্শক গ্রহণ করবেন কিনা সেটা ভাবনার বিষয়।

শাকিবের ক্যারিয়ার বাঁচাতে অপু যখন নিজের ক্যারিয়ার কোরবানি দিলেন তখন মিডিয়ায় আসে শবনম বুবলি। ২০১৬ সালে ‘বসগিরি’ ও ‘শ্যুটার’ ছবির মাধ্যমে পর্দায় অভিষেক হয় বুবলির। দুটি ছবিতেই তার নায়ক ছিলেন শাকিব খান। এরপর তিনি অভিনয় করেন ‘অহংকার’ ও ‘রংবাজ’ ছবিতে। এতেও বুবলি ছিলেন শাকিব খানের বিপরীতে।

শুধু তাই নয় তার হাতে বর্তমানে আছে ‘চিটাগাইঙ্গা পোয়া নোয়াখাইল্যা মাইয়া’ ও ‌’সুপারহিরো’ নামের দুটি ছবি। এই দুটি ছবির নায়কও শাকিব খান। মানে অপুর মতো শাকিব ছাড়া অন্য কোন নায়কের বিপরীতে বুবলিকে দেখা যাচ্ছে না। তিনিও একসময়ের অপুর মতোই বলেন, ‘ভালো গল্প পেলে অবশ্যই অন্য নায়কের বিপরীতে অভিনয় করবো।’ এরমানে হচ্ছে, অন্য নায়ক বা নায়িকা মনে হয় ভালো গল্পের কোন ছবিতে অভিনয় করেন না!

নিউজ প্রেজেন্টার থেকে নায়িকা হওয়া বুবলির পৈত্রিক নিবাস নোয়াখালী। যদিও তার জন্ম, বেড়ে ওঠা ঢাকাতেই। অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতক পাস করার পরে দুই বছর এলএলবি পড়েন, কিন্তু তা শেষ করেন নি বুবলি। মাঝে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়-এ এমবিএতে ভর্তি হন। এরপর কাজের ফাঁকে ফাঁকে ক্লাস করেন। চার ভাই বোনের মধ্যে বুবলি তৃতীয়। তার বড় বোন নাজনীন মিমি একজন সঙ্গীতশিল্পী এবং মেজবোন শারমিন সুইটি একটি বেসরকারী চ্যানেলের সংবাদ পাঠিকা।

বুবলি বর্তমানে আছেন অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে। সেখানে আছেন শাকিব খানও। সিডনিতে তারা শুটিং করছেন ‘সুপারহিরো’ ছবির। ছবির কাজ শেষে দেশে ফিরবেন ১৭ কিংবা ১৮ ফেব্রুয়ারি। আর অপুর সঙ্গে শাকিবের বিচ্ছেদ হচ্ছে ২২ ফেব্রুয়ারি। গুঞ্জণ উঠেছে বিচ্ছেদের পর বুবলিকে বিয়ে করছেন শাকিব।

যদিও এই কথার কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। তবে কথায় আছে, যা রটে তার কিছু তো বটে! বিচ্ছেদর দুই বছরের মধ্যে নাকি বিয়ে করবেন শাকিব। সেই পাত্রী বুবলি কিনা সেটা নিয়েই চলছে কানাঘুষা। যদি বুবলি হয়, তাহলে অপুর মতো আগামী দুই বছর পর বুবলিও হারিয়ে যাচ্ছেন মিডিয়া থেকে! কারণ অপু যে ভুল পথে হেঁটেছিলেন, শুধু শাকিবের সঙ্গে ছবি করে সেই একই পথে এরমধ্যে এক পা দিয়ে রেখেছেন শবনম বুবলি। বিয়ে করে অন্য পা দেন কিনা সেটাই দেখার বিষয়।